স্যার আপনাকে রোজ এসে আমাকে

স্যার আপনাকে রোজ এসে আমাকে , পড়াতে বিরক্ত করতে হবে না। আম্মু আপনাকে পছন্দ করে না। আপনি

হয় খুব খারাপ, আম্মুকে খুব খারাপভাবে দেখুন। বাবা বলেছেন যে মাস হলে অন্য কেউ আমাকে পড়াতে আসবে।

শেষ.”ছাত্রের মুখ থেকে কথাটা শুনে নিজের কাছে খুব লজ্জা পেলাম।আমি প্রতি উত্তরে বলতে চেয়েছিলাম

তোমাকে আর পড়াবো না। খারাপ প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তোমার মা আমার উপর রাগ করেছে। কিন্তু মনে হলো

মায়ের মেয়ের অপবাদ দেওয়া উচিত হয়নি। তাই চুপ করে রইলাম।পাঠ শেষে বেতনের টাকা হাতে ধরে ছাত্রীর মা

বললেন- তোমাকে আর আসতে হবে না। মাস আসতে এখনও সাত দিন বাকি, কিন্তু এখানে পুরো মাসের বেতন

পরিশোধ করেছি। আমরা কমলাসকে কখনো ঠকাই না। চুপচাপ টাকাটা নিয়ে বাসা থেকে বেরিয়ে এলাম। এক বড়

স্যার আপনাকে রোজ এসে আমাকে

ভাই বললেন, গ্রামীণ আর শহুরে টিউশনির মধ্যে অনেক পার্থক্য। সেটা আজ বুঝলাম।এখন চারটা বাজে. এইবার আজ তানিয়ার সাথে দেখা করতে হবে। মেয়েটা আজও আমার জন্য অপেক্ষা করছে। রিকশাও পাচ্ছি না। সাড়ে চারটার দিকে দেখি তানিয়া একটা বেঞ্চে বসে আছে। তিনি আমাকে দেখে উঠে দাঁড়ালেন।তুমি কি কখনো মানুষ হবে না? সারাজীবন আপনি জনগণের কাছে অবহেলিত এবং কখনোই মানুষের প্রশংসা পেতে পারেননি। আপনি কষ্ট ছাড়া আপনার কাছের মানুষকে এক টুকরো সুখ দিতে পারেননি। বাবার কাছে তুমি ব্যর্থ সন্তান, মায়ের কাছে তুমি কখনোই ভালো ছেলে হতে পারোনি। শখ হলেও কখনো বোনের জন্য শাড়ি কিনতে পারেননি। আমি আমার ভাইকে কিছু দিতে পারিনি। তোমার এত অভিমান কেন?তানিয়া আমাকে কথাগুলো বললে আমি থমকে দাঁড়িয়ে

বলার মত কিছু খুঁজে পেলাম

বলার মত কিছু খুঁজে পেলাম না। এমন কথা শোনার জন্য আমি মোটেও প্রস্তুত ছিলাম না। ছাত্রীর বাসা থেকে আসার পর থেকেই তানিয়ার কথাগুলো খারাপ লাগছে তার বুকের ভেতরটা জ্বলতে শুরু করেছে।
কিছু বলছ না কেন?আমার কী বলা উচিত? আমি চাকরির জন্য চেষ্টা করছি। যদি না হয়, আমি কি করব?
– আপনি চেষ্টা করেছেন? কি দারুন! মেয়ে হিসেবে বিয়েটা দুই বছর ধরে রেখেছি। অনেক স্বপ্ন নিয়ে অপেক্ষা করছি ভালো চাকরি পাবো এই আশায়। এমনকি আমার সাহায্যে আপনি একটি চাকরি পেয়েছেন। কিন্তু আপনি কি করলেন? আপনি আপনার এক বন্ধুকে কাজ দিয়েছেন। আমি আপনার জন্য সব ব্যবস্থা. আমি আপনাকে আমার নিজের পেতে কাজ ব্যবস্থা. অন্য কাউকে দিয়েছ কেন?আমি তোমাকে কতবার বলেছি যে আমার চেয়ে আমার বন্ধুর চাকরি বেশি দরকার? আমাদের পরিবার কোনোভাবে জীবিকা নির্বাহ করছে। কিন্তু রাকিবের পরিবারে রাকিব ছাড়া টাকা রোজগারের কেউ নেই। চাকরিটা তার খুব দরকার ছিল।

About admin

Check Also

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এ বিভিন্ন পদে নিয়োগ!

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি …

Leave a Reply

Your email address will not be published.